You are here
Home > ক্রিকেট > ৯ বছর পরে ক্যারিবিয়ানদের বধ!!

৯ বছর পরে ক্যারিবিয়ানদের বধ!!

৯ বছর পরে ক্যারিবিয়ানদের বধ!!
তখন অনেক কিছুই আলাদা ছিল। ২০০৯ সালে সেন্ট জর্জেসে ক্যারিবীয়দের হারানো সেই ম্যাচ থেকে এই ম্যাচে খেলেছেন শুধু সাকিব, ইমরুল, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ ও কেমার রোচ। নয় বছরে বদলে গেছে অনেক কিছুই, মাঝে অধিনায়কত্ব হারিয়ে আবার ফিরে পেয়েছেন সাকিব। দেশের মাটিতে বাংলাদেশ জিতেছে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বৃত্তপূরণের আরও দুইটা বিন্দু যোগ করলো বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় ও দেশের মাটিতে প্রথম জয় পেল তারা। চট্টগ্রামে তাইজুল ইসলামের ছয় উইকেট তৃতীয় দিন চা-বিরতির আগেই নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের ৬৪ রানের জয়।
 
দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ মাত্র ১২৫ রানে অলআউট হলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের লক্ষ্য ঠিক হয় ২০৪ রানের। এই লক্ষ্যটাই তাদের জন্য পাহাড়সমান করে তোলেন বাংলাদেশের স্পিনাররা, বিশেষ করে তাইজুল। তার ৬ উইকেট প্রাপ্তির দিনে ক্যারিবিয়ানরা দ্বিতীয় ইনিংসে গুটিয়ে যায় ১৩৯ রানে। যাতে ৬৪ রানের জয়ে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।
 
তৃতীয় দিনের চা বিরতির আগে শেষ হয়ে গেছে চট্টগ্রাম টেস্ট। এই সময়ে ‘স্পিন-রাজত্বে’ দুই দল মিলিয়ে উইকেট হারিয়েছে ১৬টি! যেখানে মাত্র ৩৩ রান খরচায় তাইজুল পেয়েছেন ৬ উইকেট। সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ প্রত্যেকেরই শিকার দুটি করে উইকেট।
 
হারের আগে বাংলাদেশকে কিছুটা অস্বস্তিতেও রেখেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৭৫ রানে ৮ উইকেট হারানোর পর নবম উইকেটে জোমেল ওয়ারিকানের সঙ্গে ৬৩ রানের জুটি গড়েন সুনিল অ্যামব্রিস। শেষ পর্যন্ত তাদের জুটি ভাঙেন মিরাজ। ৪১ রান করা ওয়ারিকানকে ক্যাচ বানান সাকিবের হাতে। আর তাইজুল বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন ৪৩ রান করা অ্যামব্রিসকে আউট করে।
 
নাঈম হাসান প্রথম ইনিংসে পেয়েছেন ৫ উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে তাকেও ছাড়িয়ে গেলেন তাইজুল ৬ উইকেট নিয়ে। তবু চট্টগ্রাম টেস্টের সেরা খেলোয়াড় তাদের কেউই নন। ব্যাটসম্যানদের জন্য কঠিন পরীক্ষার এই টেস্টে চমৎকার সেঞ্চুরি করা মুমিনুল হক পেয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। প্রথম ইনিংসে এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের ১২০ রানই গড়ে দিয়েছে পার্থক্য।
 
জিম্বাবুয়ে সিরিজের সাফল্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও ধরে রাখলেন তাইজুল। চমৎকার বোলিংয়ে ডওরিচের পর আউট করেছেন বিশুকে। ক্যারিবিয়ান উইকেটরক্ষক ডওরিচকে (৫) ফেলেন এলবিডাব্লিউয়ের ফাঁদে। আর বিশুকে সরাসরি বোল্ড করে মাত্র ১০ রান খরচায় তাইজুল নামের পাশে যোগ করেন আরো ৪ উইকেট।
 
প্রথম ইনিংসে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেছিলেন হেটমায়ার। দ্বিতীয় ইনিংসে ক্যারিবিয়ানরা দ্রুত ৪ উইকেট হারিয়ে যখন ধুঁকছে, তখনও তিনি ব্যাটে ঝড় তুললেন। টি-টোয়েন্টি মেজাজে খেলে বাংলাদেশের বোলারদের ভড়কে দেওয়ার পরিকল্পনাই হয়তো ছিল তার।
 
যদিও তার ঝড় বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে দেননি মিরাজ। এই স্পিনারের বলে ‘বিগ’ শট খেলতে গিয়ে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান মিড উইকেটে ধরা পড়েন নাঈম হাসানের হাতে। প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে ১৯ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় করেন ২৭ রান।
 
সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ
 
চট্টগ্রাম টেস্ট
বাংলাদেশ ৩২৪ ও ১২৫ (মাহমুদউল্লাহ ৩১, বিশু ৪/২৬)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৪৬ ও ১৩৯ (আমব্রিস ৪৩, তাইজুল ৬/৩৩)
বাংলাদেশ ৬৪ রানে জয়ী
ছবি-ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত 
উপরে